1. admin@71bangla24.com : admin :
বৃহস্পতিবার, ০১ অক্টোবর ২০২০, ০৮:১৪ পূর্বাহ্ন
বিজ্ঞাপন:
সারাদেশে জেলা/উপজেলা প্রতিনিধি নেওয়া হবে।আগ্রহীরা যোগাযোগ করবেন ০১৭৭৮৬২০৬৯০ অথবা ০১৭১২৯৫৪৮৮৩ আপনার প্রতিষ্ঠানকে সারা বিশ্বে পরিচিত করতে বিজ্ঞাপন দিন।বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন-০১৭৭৮৬২০৬৯০
শিরোনামঃ
বরগুনার রিফাত হত্যা মামলায় মিন্নি সহ ৬ জনের ফাঁসির রায় দিয়েছে আদালত। বোয়ালমারীতে ৩ কেজি গাঁজা উদ্ধার, মহিলাসহ আটক ৪ “হিরণময়” আনিসুর রহমান ভ্রাম্যমান আদালতে অবৈধ বালু উত্তোলনের ড্রেজার ধ্বংস করলেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) মারিয়া হক। শেখ হাসিনার জন্মদিনে আব্দুর রহমান এর শুভেচ্ছা। অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের মৃত্যুতে আব্দুর রহমান এর শোক। জামালপুরে রাসেল হত্যা মামলায় ২ জনের মৃত্যু দন্ড ও ৭ জনের যাবজ্জীবন জামালপুর শহরে সম্মিলিত ব্যবসায়ী জনতা ঐক্য পরিষদের উদ্যোগে মানববন্ধন জামালপুর শহরের চালাপাড়ায় একজনের রহস্যজনক মৃত্যু, লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ জামালপুর জেলা শাখার বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত
add

“অতি সাধারণ বিয়ে কিন্তু অন্যন্য তার গল্প”

  • মঙ্গলবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৩৮ বার পড়া হয়েছে


ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়ার সঙ্গে শেখ হাসিনার বিয়ের বন্দোবস্তটা মূলত তৎকালীন আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ নেতারাই করেছিলেন।
ওয়াজেদ মিয়া প্রিয়জনদের ‘সুধা মিয়া’ যুক্তরাষ্ট্রের ডারহার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ‘নিউক্লিয়ার এন্ড হাই এনার্জি পার্টিকেল ফিজিকসে’ পিএইচডি শেষে ১৯৬৭ সালের সেপ্টেম্বরে ঢাকায় ফিরে আসেন এবং কর্মস্থল তৎকালীন পাকিস্থান আণবিক শক্তি কমিশনে ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা পদে যোগ দেন। কিছুদিন পরে রংপুরের আওয়ামী লীগ নেতা মতিউর রহমান তাকে গুলশানের বাসায় ডেকে বিয়ের ব্যাপারে কথা বলে জানতে চান, কেমন পাত্রী তার পছন্দ। ওয়াজেদ মিয়া বলেন, কোটিপতির কন্যা বা আপস্টার্ট মেয়ে হওয়া চলবে না। অবশ্যই সুরুচি সম্পন্ন, অমায়িক ও সদাচার স্বভাবের হতে হবে।

১০ দিন পর মতিউর রহমান আবার তাকে বাসায় ডেকে বলেন, তুমি মুজিব ভাইয়ের মেয়ে হাসিনাকে দেখেছো? আমার মনে হয়, ওর সঙ্গে তোমাকে খুব মানাবে। ওয়াজেদ মিয়া বলেন, সে কি করে সম্ভব? শেখ সাহেবকে তো আমি ভাই বলে ডাকি। মতিউর রহমান বলেন, সেটা রাজনৈতিক সম্পর্ক। ১৯৬১-৬২ শিক্ষা বছরে ছাত্রনেতা ওয়াজেদ মিয়া যখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফজলুল হক মুসলিম হলের ভিপি নির্বাচিত হন; তখনই তিনি বঙ্গবন্ধুর সান্নিধ্যে চলে আসেন। বিয়ের কথা যখন হচ্ছিল শেখ হাসিনা তখন স্নাতকের ছাত্রী এবং ‘৬৬-৬৭ শিক্ষাবর্ষে ইডেন কলেজ ছাত্রী সংসদের নির্বাচিত ভিপি। বঙ্গবন্ধু তখন আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় কারাগারে বন্দী।

দু’দিন পর ১৬ই নভেম্বর, সন্ধ্যায় মতিউর রহমানের বাসায় আসেন বেগম মুজিব, শেখ কামাল, শেখ শহীদ ও একজন মুরব্বি। অল্প কিছুক্ষন পরে আসেন শেখ হাসিনা। তাকে ওয়াজেদ মিয়া জিজ্ঞেস করেন, তুমি হাসিনা না? বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, হ্যাঁ, আমি হাসিনা। তারপর সেখান থেকে চলে যান। বেগম মুজিব জানান, বিষয়টি নিয়ে জেলগেটে শেখ সাহেবের সঙ্গে আলাপ হয়েছে, তিনি সম্মতি দিয়েছেন। সহজ, সরল, মেধাবী, সদা সত্যভাষী এবং রাজনৈতিক প্রজ্ঞায় অনন্য এই মানুষটিকে মতিউর রহমানের প্রস্তাবে কন্যা শেখ হাসিনার স্বামী হিসাবে পছন্দ করেন বঙ্গবন্ধু।

ওয়াজেদ মিয়া নেতার সম্মতির কথা জেনে সেদিনই বিয়ের কথা পাকা করতে সিদ্ধান্ত নেন। দুপুরে বায়তুল মোকাররম থেকে কেনা আংটি হাসিনার হাতে পরিয়ে দেন। আংটি পরানোর সময় দেখেন, আংটিটি আঙুলের মাপের চেয়ে বেশ বড়। এরপর ওয়াজেদ মিয়ার আঙুলে আংটি পরিয়ে দিয়ে দোয়া করেন বেগম মুজিব। তিনি জানতে চান, তাদের গাড়িতে ওয়াজেদ মিয়া যাবেন কিনা। ওয়াজেদ মিয়া রাজি হন। গাড়িতে তাকে জিজ্ঞেস করা হয়, তাদের বাসায় যেতে তার আপত্তি আছে কিনা। ওয়াজেদ মিয়া বলেন, না। গাড়িটি তাদের বাসার সামনে থামার পরপরই শেখ হাসিনা দ্রুত গাড়ি থেকে বের হয়ে বাড়ির উপর তলা চলে যান।

পরদিন ওয়াজেদ মিয়া স্টেডিয়াম মার্কেট থেকে একটি লাল-গোলাপি শাড়ি, মাঝারি আকারের ক্রিম রঙের নতুন ডিজাইনের একটি স্যুটকেস ও এক জোড়া স্যান্ডেল কিনেছিল। রাত সাড়ে ৮টায় মতিউর রহমান ও তার স্ত্রী, ওয়াজেদ মিয়াকে নিয়ে যান ধানমন্ডির ৩২ নম্বর রোডের বাসায়। সেখানে উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধুর ছোট বোন জামাই এটিএম সৈয়দ হোসেন অন্যান্য মুরব্বি। মুরব্বিরা সিদ্ধান্ত নেন সেদিনেই বিয়ে পড়ানো ও কাবিননামা করার। কিন্তু স্যুট পরে ছিলেন বলে ওয়াজেদ মিয়া কিছুটা ইতস্ততঃ বোধ করেন। শেষে একটি টুপি চেয়ে নেন। সে রাতটি ছিল ১৭ই নভেম্বর ১৯৬৭, শবে বরাত। কাবিনপত্রে ২৫ হাজার টাকা দেনমোহরানা সাব্যস্তে বিয়ে হয় ওয়াজেদ মিয়া ও শেখ হাসিনার।

বাঙ্গালী বিয়েতে শ্যালক শ্যালিকার যে খুনসুটি, রসবোধ পর্ব থাকে। এই বিয়েতেও ঠিক তেমনটি ছিল। বউ দেখার জন্য ওয়াজেদ মিয়া উপর তলায় যান, দেখেন তার দেয়া সেই লাল-গোলাপি শাড়িতে বউ সেজে বসে আছে শেখ হাসিনা, সাথে ফুফাত বোন শেলী জামান ও ছোট বোন রেহানা। তাকে দেখেই শেখ রেহানা বলেন, দুলাভাই খালি হাতে এসেছেন বউ দেখতে। বউ দেখতে দেবো না।

পরদিন ১৮ই নভেম্বর, বিকালে জেলগেটের কাছে একটি কক্ষে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে দেখা করতে যান নবদম্পতি সাথে পারিবারিক সদস্য ও দলীয় অন্যান্য নেতারা। জামাই ওয়াজেদ মিয়াকে বঙ্গবন্ধু জড়িয়ে ধরে দোয়া করেন, তার হাতে একটি রোলেক্স ঘড়ি পরিয়ে দেন। শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুকে কদমবুজি সালাম করে কাঁদছিলেন। তখন বঙ্গবন্ধু বলেন তুমি কাঁদছো কেন? আমি তোমাকে কিছু দিতে পারিনি বলে? বঙ্গবন্ধু তখন উপস্থিত দলীয় নেতাদের দেখিয়ে বলেন তোমার চাচারাই তোমার বিয়ের অনুষ্ঠান আয়োজন করবে।

সেদিন বাসায় ফিরে বেগম মুজিব তাকে বলেন, তুমি আমার বড় ছেলের মতো শেখ সাহেব অনুমতি দিয়েছেন। যথাসম্ভব তুমি আমাদের সঙ্গে থাকবে। এরপর প্রতিদিন বিকালে গাড়ি পাঠিয়ে বেগম মুজিব তাকে বাসায় নিতেন। রাতে খাওয়া-দাওয়া শেষে ১১টার দিকে বাসায় ফিরতেন তিনি। দিন দশেক পরে শেলী জোর করে রাতে তাকে বাসায় থাকতে বাধ্য করেন। এরপর থেকে প্রায় রাতেই ৩২ নম্বরে থাকতেন ওয়াজেদ মিয়া।

বঙ্গবন্ধু শেখ হাসিনাকে সঠিক পাত্রের হাতেই তুলে দিয়েছিলেন। ওয়াজেদ মিয়া শেখ হাসিনার দাম্পত্য জীবন ছিল মধুময়।ছিল পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় যেমন বঙ্গবন্ধুর পরিবারের হাল ধরেছিলেন, তেমনি বঙ্গবন্ধু হত্যার পর গোটা পরিবারের হাল ধরেন ওয়াজেদ মিয়া। ৮১ সাল পর্যন্ত নির্বাসিত জীবনে ভারতীয় পরমাণু শক্তি কমিশনের বৃত্তির টাকায় সংসার চালিয়েছেন তিনি। সর্বশেষ চাকরি করেছেন পরমাণু শক্তি কমিশনের চেয়ারম্যান পদে। ১৯৯৯ সালে অবসর গ্রহণ করেন চাকরি থেকে।
স্ত্রীর প্রতি তার ভালোবাসা ছিল অতল। সর্বশেষ ২০০৬ ও ২০০৭ সালে স্ত্রী শেখ হাসিনা যখন সাব জেলে বন্দী তখন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের কাছে স্ত্রীর মুক্তির দাবিতে চিঠি লেখেন তিনি।
৯ মে, ২০০৯ সবাইকে শোক সাগরে ভাসিয়ে চিরদিনের জন্য চলে যান ড. ওয়াজেদ মিয়া।

ছবিটি ওয়াজেদ মিয়া ও শেখ হাসিনার বিবাহোত্তর সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের চট্টগ্রামের রাইফেল ক্লাবে। তারিখটি হলো ১৯৬৮ সালের ১৯ এপ্রিল।

add

ভালো লাগলে এই পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই কেটাগরির আরো খবর

বাংলাদেশে কোরোনা

সর্বশেষ (গত ২৪ ঘন্টার রিপোর্ট)
আক্রান্ত
মৃত্যু
সুস্থ
পরীক্ষা
২,৯৪৯
৩৭
২,৮৬২
১৩,৪৮৮
সর্বমোট
১৭৮,৪৪৩
২,২৭৫
৮৬,৪০৬
৯০৪,৫৮৪
add
© 71bangla24 2020 All rights reserved. কারিগরি সহায়তা: WhatHppen
Theme Customized By BreakingNews