1. admin@71bangla24.com : admin :
বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৪:১৬ অপরাহ্ন
বিজ্ঞাপন:
সারাদেশে জেলা/উপজেলা প্রতিনিধি নেওয়া হবে।আগ্রহীরা যোগাযোগ করবেন ০১৭৭৮৬২০৬৯০ অথবা ০১৭১২৯৫৪৮৮৩ আপনার প্রতিষ্ঠানকে সারা বিশ্বে পরিচিত করতে বিজ্ঞাপন দিন।বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন-০১৭৭৮৬২০৬৯০
শিরোনামঃ
“হিরণময়” আনিসুর রহমান ভ্রাম্যমান আদালতে অবৈধ বালু উত্তোলনের ড্রেজার ধ্বংস করলেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) মারিয়া হক। শেখ হাসিনার জন্মদিনে আব্দুর রহমান এর শুভেচ্ছা। অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের মৃত্যুতে আব্দুর রহমান এর শোক। জামালপুরে রাসেল হত্যা মামলায় ২ জনের মৃত্যু দন্ড ও ৭ জনের যাবজ্জীবন জামালপুর শহরে সম্মিলিত ব্যবসায়ী জনতা ঐক্য পরিষদের উদ্যোগে মানববন্ধন জামালপুর শহরের চালাপাড়ায় একজনের রহস্যজনক মৃত্যু, লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ জামালপুর জেলা শাখার বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত সালথায় আলেমদের সাথে ফরিদপুর জেলা প্রশাসকের মত বিনিময়। ফরিদপুরে লাইসেন্স বিহীন কোন ক্লিনিক থাকবে না- যুগ্ন সচিব উম্মে সালমা তানজিয়া।
add

সম্মুখ যোদ্ধা, করোনা পজিটিভ একজন ডাক্তার এর আবেগঘন স্ট্যাটাস-৭১ বাংলা।

  • রবিবার, ১২ জুলাই, ২০২০
  • ৪২৩ বার পড়া হয়েছে

ডাঃ তানিয়া আহসান।

এমবিবিএস,এফসিপিএস, সার্জারী (পার্ট-২ ), মেডিকেল অফিসার, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, গোসাইরহাট, শরীয়তপুর।

“I solemnly pledge myself to consecrate my life to the service of humanity ” হ্যাঁ আমি শপথ নিয়েছিলাম মানবতার জন্য নিজেকে উৎসর্গ করবো। কিন্তু মানবতা বলতে আপনি কি বোঝেন? রাত ৩ টার সময় সামান্য কারন নিয়ে মারামারি করে আসা দুপক্ষের মধ্যে কার চিকিৎসা আগে শুরু হবে সেটা নিয়ে আাবার মারামারি, চিকিৎসক এর উপর চড়াও হওয়া? রাত ১০ টায় প্রসব হওয়ার পরে রোগীর রক্তপাত বন্ধ হয়নি প্লাসেন্টা বের না হওয়ায়, আপনি রাত ১ঃ৩০ টায় মৃত অবস্থায় হাসপাতালে রোগী নিয়ে এসে মারামারি শুরু করেছেন,এটাই কি আপনার মানবতা? ডাক্তার আপনাকে বলেছেন তাদের পরামর্শ ব্যতীত আপনি উচ্চ রক্তচাপ এর ওষুধ বন্ধ করবেন না,কিন্তু আপনি চলেন নিজের মর্জিতে,ওষুধ খান না, এবার হাসপাতালে এসেছেন মারাত্মক হার্ট অ্যাটাক নিয়ে যখন করার মত তেমন কিছু হাতে নেই,মারা গেলেন কয়েক ঘন্টা পরেই,এবার সব দোষ ডাক্তারের, মারো তাকে, মেরে ফেলো, এটাই আপনার মানবতা? রোগী এসেছে আত্মহত্যা করে,বিষ খেয়ে হয়ত মৃত বা মৃত অবস্থায়, হাজার চেষ্টা করেও বাঁচানো গেল না, এর জন্য ও দায়ী ডাক্তার, মারো ডাক্তার কে,এটাই কি আপনার মানবতা? হাসপাতালে জীবন রক্ষাকারী ওষুধ নাই,অক্সিজেন নাই,প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম নাই, এখানেও দোষ ডাক্তার এর,মারো ডাক্তার কে, এটাই কি আপনার মানবতা? তবে হ্যাঁ এই মানবতার সেবা কারার শপথ আমি নেইনি,যেখানে আমার জীবনের মূল্য আপনার কাছে নেই, আমি সবচেয়ে অনিরাপদ আমার কর্মস্থলে। আপনি কি জানেন কতটা ত্যাগের বিনিময়ে কেউ ডাক্তার হয়? কত রাত না ঘুমিয়ে কাটায় একজন ডাক্তার তার জীবনে? অনেক হাসপাতালে ডাক্তার দের সামান্য বিশ্রাম নেয়ার মত রুম নেই,সারারাত চেয়ারে বসে ডিউটি করতে হয়,ভুক্তভোগী আমি নিজে,এমনও রাত গেছে টানা কাজ করে,ওটি এসিস্ট করে ভোর ৫ টায় যখন আর বসে থাকাও সম্ভব না,পুরো ওয়ার্ড খুজে বেরাতাম রোগীর কোন বিছানা খালি আছে কিনা,একটু হলেও শরীরটার বিশ্রাম দরকার,অনেক রাত রোগীর বিছানায় রেস্ট নিতে হয়েছে আমার, আমার অসংখ্য সহকর্মীদের।গাইনী তে অনেক আপুদের দেখেছি ৩/৪ মাসের বাচ্চা বাসায় রেখে সারারাত অন্য কারো বাচ্চা বাঁচাতে লড়াই করে যাচ্ছে।আপনি কি পারবেন তাদের এই অমানুষিক কষ্টের মূল্য দিতে? যদি নাই পারেন তাহলে তাদের গায়ে হাত তোলেন কোন সাহসে?অনেকের ধারণা ডাক্তার ভুল চিকিৎসা করে রোগী মেরে ফেলেছে, একটু কমন সেন্স কাজে লাগান,ডাক্তার এর কি এমন দায় পরেছে আপনার রোগীকে মেরে ফেলার, এতে ডাক্তার এর লাভ কি,আপনি তো তাকে ছেড়ে কথা বলবেন না,তাহলে কেন সে আপনার রোগীর খারাপ চাইবে? একটা কথা মনে রাখবেন ইচ্ছা করে কোন ডাক্তার তার রোগীর খারাপ চাইবেনা, নেভার। এখন কথা হলো এরপর ও কেন এই পেশায় পড়ে আছি কারণ কোন একদিন এক অসুস্থ চাচা সুস্থ হওয়ার পরে মাথায় হাত রেখে বলেছিলো আমি তোমার জন্য সবসময় দোয়া করবো,কেউ একজন ওয়ার্ড এ ঢুকলেই আম্মাজান বলে ডাকতো,কেউ একজন বলেছিলো আমি হাসপাতাল থেকে ছুটি পেয়ে বাড়ি গিয়েই তোমার নাম এ মসজিদে কুরআন শরীফ কিনে দিবো, এমন হাজারো দোয়ায় আমাদের সাহস জোগায় বার বার মানুষের জন্য জীবনের ঝুঁকি নিতে। আমরা,ডাক্তার রা সবসময় আপনাদের পাশে ছিলাম,আছি এবং থাকবো ইনশাআল্লাহ। আপনারা দয়া করে অন্যের দোষ, চিকিৎসার অব্যবস্থাপনার দায় ডাক্তার এর মাথায় দিয়ে তাদের কাজের জায়গা অনিরাপদ করবেন না।
এখন আসি ওপরের ছবি প্রসঙ্গে, ছবি গুলো আমার কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হওয়ার সময়কার,সো ওফ মনে হতে পারে কিন্তু আমি চাই অন্তত কিছু মানুষ বুঝুক ডাক্তার রা চেষ্টা করছে, করবে, ডাক্তার তার জন্য ভরসার জায়গার আর এক নাম। বাড়ি থেকে ১৪৫ কিমি দূরে থেকে এই লড়াই লড়ে জিতে ফেরার পেছনে কিছু কাছের মানুষের নাম না বললেই নয়,আমার সহকর্মী ডা.রিজভী ভাই, আমার সমস্যা বলার ১০ মিনিটের মধ্যে অক্সিজেন সিলিন্ডার, নেবুলাইজার সব ব্যবস্থা করার জন্য ,সিফাত আপু,আল আমিন ভাই, তাহের ভাই,সাদ ভাই,ইসমাইল, বদরুন আপু,শিমু আপু,সাইখ ভাই যারা তাদের সর্বত্তম চেষ্টা করেছেন আমার চিকিৎসার বিষয়ে,কখনো খাবার রান্না করে দিয়েছন,কখনো নিজে গিয়ে আমার পছন্দের খাবার কিনে এনেছেন । আরো দুইজন সিনিয়র সোহরাওয়ার্দী এর যারা ভরসা দিয়েছিল সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল যেকোন খারাপ পরিস্থিতিতে আমার পাশে থাকবে রাজীব ভাইয়া আর এমরান ভাইয়া। এবং যারা সবসময় মেসেঞ্জার বা ফোন করে খোঁজ নিয়েছেন ।আজীবন কৃতজ্ঞতা আপনাদের সবার প্রতি। আবারও বলছি আমরা ডাক্তার রা মাসের পর মাস কাছের মানুষ, পরিবার ছেড়ে হাসপাতালে পরে আছি আপনাদের সেবায়,আপনারা দয়া করে এমন কাজ করবেন না,যাতে আমরা মনোবল হারিয়ে ফেলি।

add

ভালো লাগলে এই পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই কেটাগরির আরো খবর

বাংলাদেশে কোরোনা

সর্বশেষ (গত ২৪ ঘন্টার রিপোর্ট)
আক্রান্ত
মৃত্যু
সুস্থ
পরীক্ষা
২,৯৪৯
৩৭
২,৮৬২
১৩,৪৮৮
সর্বমোট
১৭৮,৪৪৩
২,২৭৫
৮৬,৪০৬
৯০৪,৫৮৪
add
© 71bangla24 2020 All rights reserved. কারিগরি সহায়তা: WhatHppen
Theme Customized By BreakingNews